বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০১৯  ১১ বৈশাখ ১৪২৬, ১৭ সাবান, ১৪৪০ Untitled Document

সদ্য সংবাদ

সবাইকে কাঁদিয়ে ওপারে নুসরাত

Untitled Document
হালনাগাদ :২০১৯-০৪-১৩, ১২:৫৩

প্রতিনিধী

মাঈন উদ্দিন পাটোয়ারী: ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির জানাযা শেষে অশ্রুসিক্ত নয়নে তার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় সোনাগাজী সাবের পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাযার নামাজ শেষে পৌরসভার উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে দাদির কবরের পাশেই সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে তাকে দাফন করা হয়। জানাযার নামাজ পড়ান তার পিতা মাওলানা একেএম মুসা। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক প্রটোকল অফিসার আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম, ফেনী জেলা প্রশাসক মো: ওয়াহিদুজজামান, জেলা  পুলিশ সুপার এসএম জাহাঙ্গীর আলম সরকার, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুর রহমান বিকম, সোনাগাজী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মাহমুদ চৌধুরী লিপটন, পৌর মেয়র এডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকনসহ বিপুল পরিমাণ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য তার লাশ ঢামেক হাসপাতালের মর্গে নেওয়া হয়। ময়নাতদন্ত শেষে দুপুর ১১ টার দিকে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বিকাল ৫টায় গ্রামের বাড়ীতে তার মরদেহ নেয়া হলে মানুষের কান্নায় আকাশ-বাতাশ ভারি হয়ে ওঠে।

এর আগে ২৭ মার্চ সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার আলিম পরিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে নিজ কক্ষে ঢেকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার যৌন নিপীড়নের চেষ্টা করে। এ ঘটনায় অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে এই শিক্ষার্থীর পরিবার। মামলায় অধ্যক্ষ সিরাজ কারাগারে থাকা অবস্থায় ৬ এপ্রিল এ শিক্ষার্থীকে মাদরাসার ছাদে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে চার মুখোশধারী। এ ঘটনায় ৮ জনকে আসামী করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করলে এপর্যন্ত ১১ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করে ৭জনকে রিমান্ডে নেয়। বর্তমানে মামলাটি পিবিআই তদন্ত করছেন।  দীর্ঘ ৬ দিন শরীরের ভয়ঙ্কর যন্ত্রণা নিয়ে বুধবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটে মৃত্যুবরণ করেন নুসরাত।

হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি এলাকাবাসীর:
সোনাগাজীতে আলিম পরিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার দাবী করেছেন এলাকাবাসী। বৃহস্পতিবার বিকালে সোনাগাজী পৌরসভাস্থ চর ছান্দিয়া গ্রামে এই ছাত্রীর বাড়িতে আগত এলাকাবাসী ও পরিবারের সদস্যরা নৃশংস এই হত্যাকান্ডে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার দাবী করেন।
নুসরাতের বৃদ্ধ দাদা মোশাররফ হোসেন মুমুর্ষু অবস্থায় বলেন, আদরের নাতনী নুসরাতের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে আমি বাকরুদ্ধ হয়ে যাই। আমি চাই ঘটনার সাথে জড়িত প্রকৃত আসামীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক। এছাড়া নুসরাতের চিকিৎসায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যথেষ্ট আন্তরিকতা দেখিয়েছেন। তার মৃত্যুর পর শোক প্রকাশ করায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুস সোবহান বলেন, নুসরাত পর্দা করায় তাকে কখনো দেখিনি। ঘটনার পর তার ওই ছবি দেখে ওই রাতে ঘুমাতে পারিনি। লম্পট অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলাসহ যারা মেয়েটিকে পুড়িয়ে হত্যা করেছেন তাদের কঠিন শাস্তি দিতে হবে। যাতে আগামীতে এ ধরনের ঘটনা কেউ করার সাহস না পায়।
আলেয়া বেগম নামের একশিক্ষার্থী জানান, সঠিক তদন্ত করে প্রকৃত খুনিদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দিলেই নুসরাতের আত্মা শান্তি পাবে।
স্থানীয় কাউন্সিলর নুর নবী লিটন ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, অধ্যক্ষ সিরাজের আগের ঘটনাগুলোর সঠিক বিচার করা হলে নুসরাতকে পুড়িয়ে মারারা মত ঘটনা করার সাহস পেতনা। এ ঘটনায় মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটি, প্রশাসন ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের চরম ব্যর্থতা রয়েছে বলে তিনি মনে করেন। এছাড়া তিনি প্রকৃত অপরাধীদের কঠিন শাস্তি দাবি জানান।

এদিকে জানাজার পূর্ব সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তারা নুসরাত হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানান। অপরদিকে আলোচিত হত্যাকা-ে জড়িতদের শনাক্ত করতে তদন্তে নেমেছে পিবিআইসহ পুলিশের কয়েকটি টিম।

আরও দুজন রিমান্ড:
ফেনীর সোনাগাজীতে আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যা চেষ্টায় দায়েরকৃত মামলায় গ্রেফতারকৃত উম্মে সুলতানা পপি ও মামলার এজাহার নামীয় আসামি জোবায়ের হোসেনকে ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে ফেনী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সরাফ উদ্দিন আহমেদ এই আদেশ দেন।

সূত্র জানায়, ওই সময় গ্রেফতারকৃত উম্মে সুলতানা পপি ও মামলার এজাহার নামীয় আসামি যোবায়ের হোসেনকে আদালতে হাজির করে প্রত্যেকের ৭ দিন করে রিমান্ড চায় পুলিশ। পরে শুনানি শেষে আদালতের বিচারক সরাফ উদ্দিন আহমেদ ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
এর আগে বুধবার একই আদালতে অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলাকে ৭দিন, প্রভাষক আফসার উদ্দিন ও শিক্ষার্থী আরিফুল ইসলামকে ৫দিন ও মঙ্গলবার নুর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ, আলা উদ্দিন ও শাহিদুল ইসলামের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আইনি সহায়তা দেয়ায় আওয়ামীলীগ নেতাকে অব্যাহতি:
সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা চেষ্টা মামলায় গ্রেফতারকৃতদের আইনি সহায়তা দেয়ায় সদর উপজেলার কাজিরবাগ ইউনিয়ন  আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট কাজী বুলবুল আহমেদ সোহাগকে স্বীয় পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি দিয়েছে দলটি। বৃহস্পতিবার সদর উপজেলা সভাপতি করিম উল্লাহ বিকম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, এডভোকেট কাজী বুলবুল আহমেদ সোহাগকে সংগঠন বিরোধী কার্যক্রমের দায় ও মাদরাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি খুনিদের আইনি সহযোগিতা দেয়ায় স্বীয় দায়িত্ব থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। সোহাগ ওই ইউনিয়ন পরিষদেরও চেয়ারম্যান।


 পৌর কাউন্সিলরসহ তিন আসামী গ্রেফতার:
সোনাগাজীতে আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যা চেষ্টায় (পরবর্তীতে হত্যা) দায়ের করা মামলায় এজাহার নামীয় আসামী সোনাগাজী পৌর কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাকসুদুল আলম (৪৫), জোবায়ের আহাম্মেদ (২০) ও নুর উদ্দিন (২০) কে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে মাকসুদ আলমকে ঢাকার একটি আবাসিক হোটেল ও জোবায়ের আহাম্মদকে চট্টগ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়। এ দিকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার মুক্তি আন্দোলনের সমন্বয়ক ও নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার অন্যতম আসামী নুর উদ্দিনকে ময়মনসিংহের ভালুকা এলাকা থেকে শুক্রবার বেলা ১১ টার দিকে গ্রেফতার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশনের (পিবিআই) একটি দল।
আলোচিত মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পিবিআই’র ফেনীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: মনিরুজ্জামান তিন আসামী গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ২৭ মার্চ সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার আলিম পরিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে নিজ কক্ষে ঢেকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার যৌন নিপীড়নের চেষ্টা করে। এ ঘটনায় অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করে শিক্ষার্থীর পরিবার। মামলায় অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা কারাগারে থাকা অবস্থায় ৬ এপ্রিল এই শিক্ষার্থীকে মাদরাসার ছাদে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে চার মুখোশধারী। এ ঘটনায় অধ্যক্ষ সিরাজসহ ৮ জনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করলে এ পর্যন্ত ১১ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করে সবাইকে ৭ দিন করে রিমান্ড আবেদন করলে বিভিন্ন মেয়াদে আদালত তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বর্তমানে মামলাটি পিবিআই তদন্ত করছেন। দীর্ঘ ৬ দিন শরীরের ভয়ঙ্কর যন্ত্রণা নিয়েম বুধবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটে মৃত্যুবরণ করেন নুসরাত। বৃহস্পতিবার সোনাগাজী সাবের পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাযার নামাজ শেষে সন্ধ্যায় পৌরসভার উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে দাদির কবরের পাশে অশ্রুসিক্ত নয়নে তাকে দাফন করা হয়।

হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে ফেনী উত্তাল:

সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে ক্রমান্বয়ে উত্তাল হয়ে পড়েছে ফেনীর রাজপথ।
শুক্রবার সাকালে সোনাগাজী জিরো পয়েন্টে উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবদুল মোতালেব চৌধুরী রবিন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মীর এমরানসহ ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ সভায় বক্তব্য রাখেন। এর আগে বৃহস্পতিবার বিকালে সোনাগাজী জিরো পয়েন্টে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে সমৃদ্ধ সোনাগাজী উন্নয়ন ফোরাম। একইদিন সকালে ফেনীর ট্রাংক রোডে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ফেনী সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদ ও শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।


অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার এমপিও স্থগিত:
গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে দেওয়ার পর মারা যাওয়া নুসরাত জাহান রাফির মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এসএম সিরাজ উদদৌলার এমপিও স্থগিতের পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। তার পাশাপাশি ওই মাদ্রাসার অন্য এক শিক্ষকের এমপিও স্থগিত করতে বৃহস্পতিবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে চিঠি পাঠিয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর।
চিঠিতে ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এএসএম সিরাজ উদদৌলা (ইনডেক্স-৩০৪১১১) এবং ইংরেজির প্রভাষক আফসার উদ্দিনের (ইনডেক্স-২০৩০৫০৮) এমপিও স্থগিত করতে বলা হয়েছে।

এতে বলা হয়, “মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে শ্লীলতাহানী মামলা নং-২৪, তারিখ ২৭/০৩/২০১৯ এবং হত্যা মামলা নং-১০, তারিখ ০৮/০৪/২০১৯ সোনাগাজী থানার প্রেক্ষিতে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এবং ইংরেজি বিষয়ের প্রভাষক গ্রেফতার হওয়ায় তাদের এমপিও স্থগিত হওয়া প্রয়োজন।”

মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এই দুই শিক্ষকের এমপিও স্থগিতের ব্যবস্থা নিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে অনুরোধ জানিয়েছেন। রেওয়াজ অনুযায়ী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর এখন এই দুই শিক্ষকের এমপিও স্থগিত করে আদেশ জারি করবে।
নুসরাতের পরিবারের করা শ্লীলতাহানির মামলায় গ্রেফতার হয়ে এখন বন্দি রয়েছেন শিক্ষক সিরাজ। ওই মামলা তুলে নিতে চাপ দেওয়া হলেও নুসরাত রাজি না হওয়ায় গত ৬ এপ্রিল তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।
পাঁচ দিন ধরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন থাকা নুসরাত বুধবার মারা যান। সোনাগাজীর মেয়ে নুসরাত এ বছর আলিম পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছিলেন। সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী ছিলেন তিনি।
এই ঘটনার পর দেশজুড়ে আলোচনার মধ্যে অধ্যক্ষ সিরাজকে সাময়িক বরখাস্ত করে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটিও গঠন করা হয়।

 

April 2019

SunMonTueWedThuFriSat
1

2

3

4

5

6

7

8

9

10

11

12

13

14

15

16

17

18

19

20

21

22

23

24

25

26

27

28

29

30

সর্বাধিক পঠিত
জেলা সংবাদ
সংশ্লিষ্ট সংবাদ