13th April, 2021 ।
শিরোনামঃ
টিকা নিতে আগ্রহীদের নিবন্ধন শুরু ২৬ জানুয়ারি Sample video post শেরপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় অটোরিকশার ৪ যাত্রী নিহত নারীদের জটিল মনে হওয়ায় পুতুল বিয়ে করলেন এই যুবক ফের বিয়ে করলেন হাবিব ওয়াহিদ দুই করিমের বিয়ে! পাহাড় খেয়ে নুরু টাকার পাহাড়ে মোস্তাক ২য় বারের নৌকা প্রতীক পাওয়ায় গণসংবর্ধনা মিয়ানমারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার হুমকি বাইডেনের প্রকল্প ব্যয় বাড়লে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর জন্ম নিবন্ধনে জনগনের ভোগান্তি রেলে যুক্ত হচ্ছে দ্রুতগতির ৪০ আমেরিকান ইঞ্জিন: ক্র্যাবকে রেলপথ মন্ত্রী মেট্রো স্কুল এন্ড কলেজ কোনাবাড়ী,অনলাইন ক্লাস করে সাফল্যের পথে সারাদেশে করেনার টিকাদান শুরু কাল, প্রস্তুত ১০০০ হাজারের উপর কেন্দ্র প্রথম দিন গনহারে করোনা টিকা নিলেন বাসচাপায় সিরাজগঞ্জে মৃত ৩ জন বিশিষ্টজনদের মিলনমেলা- ফেনী সাংবাদিক ফোরাম ঢাকা’র রজতজয়ন্তীতে সেলিম খোন্দকার বাংলাদেশ স্কাউটস’র জাতীয় কমিশনার নিযুক্ত আওয়ামী তৃণমূল’র বাতিঘর আরজু আর নেই সোনাগাজী পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা সোনাগাজীতে মাদ্রাসা ছাত্রদের মাঝে ফায়ার সার্ভিস’র মহড়া চলে গেলেন জমজম কূপ’র প্রধান প্রকৌশলী ডক্টর ইয়াহইয়া হামযাহ কুশিক ফেনীতে ভবনে বিস্ফোরণ মা ও ২ মেয়ে দগ্ধ মাসুদ চৌধুরী এমপির জনসংযোগ কর্মকর্তা হলেন ওমর ফারুক রামগড়ে চবি শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা: নোটে লিখা দুনিয়া আমার জন্য না ফেনীতে সচিব দম্পতির বিবাহ বার্ষিকী পালিত রামগড়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীতে ৪৩ বিজিবির বস্ত্র বিতরণ মুজাক্কির হত্যা মামলায় পাংখা বেলাল আটক ফেনীর ফতেহপুরে মাদকসহ আটক ১ বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ করায় ফেনী পুলিশ’র আনন্দ উদযাপন ফেনীতে হাইওয়ে পুলিশ’র ৭ মার্চ উদযাপন চৌদ্দগ্রামে বিপুল পরিমাণ গাঁজাসহ আটক ৫ সোনাগাজীর কাজীকে হাইকোর্টে তলব ছাগলনাইয়ায় আন্তর্জাতিক নারী দিবসে আলোচনা সভা মহিপাল সার্কিট হাউজ সড়কে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ লটারির মাধ্যমে পাত্র নির্ধারণ ক্রমাগত বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার করোনা ভাইরাসে বিশ্বব্যাপী মৃত্যু প্রায় ২৬ লাখ ফেনীর গাজীক্রস রোডের অবৈধ দেওয়াল ভেঙ্গে দিলেন- নিজাম হাজারী এমপি অর্থনৈতিকভাবে নয় খেলাধুলার ক্ষেত্রেও এগিয়ে বাংলাদেশ- জেলা প্রশাসক মোঃ ওয়াহিদুজজামান চৌদ্দগ্রামে পুলিশ’র নিকট মর্টারশেল হস্তান্তর ফেনী নদীর উপর বাংলাদেশ ভারত মৈত্রী সেতু উদ্বোধন নোয়াখালীর কবিরহাট ফায়ার স্টেশন’র অপারেশনাল কার্যক্রমের উদ্বোধন ফাজিলপুর ইউনিয়নের কৃতি সন্তানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আলোকিত মানুষ হতে শিক্ষার বিকল্প নাই -রিয়াল এডমির... সোনাগাজীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১ পৌর নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের মহড়া সোনাগাজী পৌর নির্বাচনে আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন বর্তমান মেয়র এড. খোকন ফেনী জেলা স্বেছাসেবকলীগ’র কর্মীসভা অনুষ্ঠিত স্ত্রী-কন্যাসহ করোনায় আক্রান্ত-নিজাম হাজারী এমপি কুমিল্লার চান্দিনায় অবৈধ শাড়ী ও থ্রি পিসসহ আটক ২ সোনাগাজী পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় জেলা প্রশাসক: রাজাঝির দিঘীর পাড়ে আর কোন দোকান নয় রামগড়ে ৪৩ বিজিবির উদ্যোগে দুঃস্থদের মাঝে গৃহনির্মাণ সামগ্রী ও অর্থ প্রদান ফেনী প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধীকে হুইল চেয়ার প্রদান রোজা থেকেও করোনাভাইরাসের টিকা নেওয়া যাবে কিনা ? ফেনীর মেধাবী মুখ রিয়ার এডমিরাল এম. শাহজাহান মহাকালের গর্বে হারিয়ে যাচ্ছে বিলোনীয়া রেলপথ ফেনীতে সাংবাদিকদের সাথে পৌর মেয়র স্বপন মিয়াজীর মতবিনিময় ২১ মার্চ ছাগলনাইয়ায় আসছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ফেনীতে বাংলাদেশ প্রতিদিন’র যুগ পদার্পন উদযাপন ফেনীতে বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস পালিত ফেনীতে মদসহ ৪ মাদক কারবারী আটক সোনাগাজী পৌরসভা নির্বাচন-২০২১: ৬ মেয়র প্রার্থী ও ৩৭ কাউন্সিলর’র মনোনয়ন বৈধ আমরা গর্বিত আমরা ফেনীর সন্তান’র আলোচনা সভা মহিপালে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা পর্যবেক্ষণে ফেনী জেলা প্রশাসক ছাগলনাইয়ায় ওয়ারেন্টভূক্ত ২ আসামী গ্রেফতার হাজার বছরের স্মৃতিতে অম্লান শিলুয়ার শীল পাথর ফেনী রিপোর্টার্স ইউনিটির আনন্দ ভ্রমণ ফেনীর মহিপালে জিএম কলোনিতে অগ্নিকাণ্ড পরিবেশ ক্লাব বাংলাদেশ ফেনী শাখার কমিটি গঠন: সভাপতি-নজরুল, সহ-সভাপতি-টুটুল, সম্পাদক-ইমাম সোনাগাজীতে ৩ পরোয়ানাভূক্ত আসামী গ্রেফতার সোনাগাজীর চরচান্দিয়ায় রাস্তা কেটে ফসলি জমির সাথে মিশিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা পরশুরাম সড়কে গাছ পড়ে মোটরসাইকেল আরোহী নিহত শখের বসে রুহির পিঠা তৈরি সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক মোঃ ওয়াহিদুজজামান: বঙ্গবন্ধুকে মনেপ্রাণে লালন করতে... সোনাগাজীতে পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা ছাগলনাইয়া থানার উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ ছাগলনাইয়ায় ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী গ্রেফতার ছাগলনাইয়ায় মাস্ক পরিধান না করায় ২৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা সোনাগাজীতে রাস্তা কেটে পেলায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ইউএনও ফেনীর প্রয়াত আ’লীগ নেতা আরজুর স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত সোনাগাজী পৌরসভা নির্বাচন-২০২১: কাউন্সিলর পদে নির্বাচন উন্মুক্ত ঘোষণায় প্রার্থীরা চাঙ্গা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়: চৌদ্দগ্রামে ডাকাতি করার সময় আটক ৩ বাপা নির্বাচন উপলক্ষে চট্টগ্রামে ঐক্য পরিষদ’র প্যানেল পরিচিতি কোরআনের একটি নকতাও পরিবর্তনের ক্ষমতা মানুষের নেই ২৬ মার্চ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ফেনীতে জেলা বিএনপির প্রস্তুতি সভা ঢাকা ডেন্টাল কলেজ হাসপাতাল’র ডিডিও হলেন ডাঃ হুমায়ূন কবির বুলবুল লোগো উম্মোচন ও আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে বক্তারা: বাংলা ভাষা-ভাষীদের গর্ব সেলিম আল দীন সোনাগাজী পৌরসভা নির্বাচন-২০২১: জবরদস্তি প্রার্থীতা প্রত্যাহারের পর আত্মহত্যার চেষ্টা শাহজাহানের ফেনীতে স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী পালিত নিজাম হাজারী এমপি স্বপরিবারে করোনা মুক্ত ফেনীতে জেলা আ’লীগের উদ্যোগে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালিত ছাগলনাইয়ায় অগ্নিকাণ্ডে ১৫ দোকান পুড়ে ছাঁই ফেনীতে ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে করোনা পরিস্থিতি: ১ দিনে আক্রান্ত ৫৯- আক্রান্ত ডিসি, এডিসি ও এসিল্যান্ড সোনাগাজী পৌরসভা নির্বাচন-২০২১: করোনা বৃদ্ধির কারণে স্থগিতের আশংকা ফেনীতে মহিলা আ’লীগের দিনব্যাপী কর্মশালায় নিজাম হাজারী এমপি- এসএসসির নিচে ছাত্রছাত্রীদের হাতে মোবাইল... অবশেষে ফেনীর বাণিজ্য মেলা বন্ধ ঘোষণা করলেন ডিসি ফেনীতে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ তাকিয়া রোড়ে অগ্নিকান্ড ৩ টি প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্থ সোনাগাজীতে মেম্বারকে ম্যাজিস্ট্রেট’র হাতে সোপর্দ করলেন চেয়ারম্যান বাবু আমিরাবাদ ইউপি পরিদর্শনে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের উপ-সচিব শহীদ উল্লাহ পাটোয়ারী আর নেই: হাজী আলাউদ্দিন’র শোক ফেনীর উত্তরা হাসপাতাল পরিদর্শনে পৌর মেয়র স্বপন মিয়াজী অধ্যাপক রাশেদ মাহমুদ’র ইন্তেকাল পরশুরামের মেধাবী মুখ মাহবুবুল আলম ৪ সন্তান’র মা হলেন জান্নাতুল খেলার মাঠে আগতদের সচেতন থাকতে হবে -সাংসদ মাসুদ চৌধুরী আবদুর রহমান বিকম’র সুস্থ্যতায় পরিবারের দোয়া কামনা ফেনীর মেধাবী মুখ ড. শামসু উদ্দিন ফরহাদ সোনাগাজীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত’র অভিযানে ৯ জনের জরিমানা অপরাধ ও মাদকের আখড়া ফুলগাজীর আমজাদ হাট ফুলগাজীতে ১০ বছরের শিশুকে বলাৎকার, গ্রেফতার ১ পরশুরামের নতুন ইউএনও প্রিয়াংকা দত্ত সোনাগাজীতে জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন: সভাপতি-সুফিয়ান, সাধারণ সম্পাদক-সিরাজ ইয়ুথ এম্পাওয়ারমেন্ট নেটওয়ার্ক’র উদ্যোগে ৪ সংগঠনকে সম্মাননা স্মারক প্রদান ফেনীতে বন্ধের পথে সিনেমা হল বঙ্গবন্ধু ফুটবল লীগ’র রোববারের খেলায় ছাগলনাইয়া ক্লাব ও এসরহমান স্মৃতি সংসদ জয়ী সোনাগাজীতে বিদেশগামী ১০ জনের মধ্যে ১০ জনই করোনা পজেটিভ ফেনীতে লকডাউন ও স্বাস্থবিধি অমান্য করায় ১১ জনের জরিমানা সোনাগাজীতে লকডাউন পালনে রাস্তায় প্রশাসন
পাহাড় খেয়ে নুরু টাকার পাহাড়ে

পাহাড় খেয়ে নুরু টাকার পাহাড়ে

ছিপছিপে গড়ন, বয়স ৩৭। পুরো নাম নুরুল আলম নুরু। কুমিল্লার ছেলে নুরুর বেড়ে ওঠা চট্টগ্রামে। শরীরের নোনা জল ফেলে, গতর খেটে তাঁর কর্মজীবনের শুরুটা ছিল শ্রমিক হিসেবে। তবে কাঁচা টাকার নেশায় শ্রমিকের কাজে মন বসেনি তাঁর। একসময় পাহাড় কাটায় মজেন নুরু। তিনিই চট্টগ্রামের পাহাড়খেকোদের ‘গুরু’। তাঁর শকুনি চোখ যে পাহাড়ে পড়েছে, পলকে সেখানেই রং হারিয়েছে সবুজ। সময়ের হাত ধরে তিনি হয়ে ওঠেন ‘পাহাড় ডন’। তাঁর আগ্রাসনে পাহাড়ও যেন নীরবে কাঁদে! একই সঙ্গে অপরাধের নানা অন্ধকার পথেও হাঁটেন তিনি। একের পর এক পাহাড় খেয়ে নুরু এখন টাকার পাহাড়ের চূড়ায়।

পাহাড় কেটে সমান করে অন্যকে বিক্রি করা কিংবা টাকার বিনিময়ে অন্যের দখল করা পাহাড় কেটে দেওয়ায় ছিল তাঁর পেশা আর নেশা। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কড়া শাসনে এই নুরু এখন চৌদ্দ শিকে বন্দি। গত ৮ জানুয়ারি নোয়াখালী থেকে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে।

কনকর্ড নামে যে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন নুরু, সেই প্রতিষ্ঠানের অধিগ্রহণে নেওয়া পাহাড়ই বেশি কেটেছেন তিনি। তবে কনকর্ডের লিজ পাওয়া এই জমির মূল মালিক বাংলাদেশ রেলওয়ে।

নুরুর বসতি চট্টগ্রাম মহানগরীর আকবর শাহ থানার নাছিয়া ঘোনা ১ নম্বর ঝিল এলাকায়। একসময়ের শ্রমিক নুরু শুধু পাহাড় কেটেই ক্ষান্ত হননি, নিজস্ব বাহিনী গড়ে তুলে নাছিয়া ঘোনায় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেন। ওই এলাকায় তাঁর অনুমতি ছাড়া কিংবা অপরিচিত কেউ ঢুকতে পারত না। ঘোনায় প্রবেশের আগে প্রধান ফটকে তাঁর নিজস্ব বাহিনীর সদস্যের জেরার মুখে পড়তে হতো সাধারণ মানুষকে। পরিচয় নিশ্চিত হলেই সীমানা পারাপারের অনুমতি, না হলে ফিরতে হতো ফটক থেকেই। তাঁর এলাকায় পুলিশও ছিল একরকম অসহায়!

অনুসন্ধানে জানা যায়, এক যুগ ধরে নাছিয়া ঘোনা নুরুর কবজায়। অর্ধশতাধিক সন্ত্রাসী নিয়ে নিজস্ব বাহিনী গড়ে তুলে নুরু পাহাড় কাটাসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এলাকায় আধিপত্য জারি করে নুরু ধারাবাহিকভাবে পাহাড় কেটেছেন। প্লট তৈরি করে মানুষের কাছে বিক্রি করেছেন। নুরু পাহাড় কাটা বৈধ করতে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ডও ঢাল হিসেবে ব্যবহার করতেন। এসব কাজে ব্যবহার করা হতো অবৈধ অস্ত্র। শেষ পর্যন্ত অস্ত্র মামলায় তাঁর ১৭ বছরের কারাদণ্ডও হয়েছিল। কিন্তু সেই সাজার পরোয়ানাও দীর্ঘ দুই বছর গোপন রাখার বন্দোবস্ত করেছিলেন নুরু।

নুরুর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ পেয়ে গত ২৬ ডিসেম্বর ওই এলাকায় অভিযানে গিয়েছিল পুলিশ। ওই সময় নুরুর নেতৃত্বে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছিল। তখনই পাহাড় কাটার বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে। এরপর ৩১ ডিসেম্বর আকবর শাহ থানায় মামলা করে পরিবেশ অধিদপ্তর। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, পাহাড়তলী মৌজার বিএস ৩৪২০ দাগের জায়গাটি পাহাড় শ্রেণিভুক্ত। এই পাহাড় কাটেন নুরুল আলম নুরু।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনি এলাকায় পাহাড় কেটে তৈরি হয়েছে বসতি, রেলওয়ে ও ব্যক্তিমালিকানাধীন পাহাড় কাটা হয়েছে অবাধে। ঝিলে পাহাড় কেটে তৈরি হয়েছে গাউসিয়া লেকসিটি নিউ আবাসিক এলাকা। ওই আবাসিকেই মূলত বহিরাগতদের প্রবেশ ছিল ‘অঘোষিত’ নিষিদ্ধ। শুধু সেখানকার বাসিন্দারাই যেতে পারত আবাসিকে। সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে সন্ত্রাসীদের আস্তানা। সেই আবাসিকে নিজস্ব বাড়ি, পাহাড় কেটে প্লট তৈরি, অন্যের ঘর তৈরির সরঞ্জাম সরবরাহসহ নানাভাবে টাকা আয় করে কোটিপতি বনেছেন নুরু।

দেখা গেছে, পাহাড় কেটে যে নিউ আবাসিক এলাকা তৈরি করা হয়েছে, তার প্রবেশমুখে গেট তৈরি করা হয়েছে। গেটের আশপাশে তৈরি হয়েছে ভবন। ভবনগুলোর মালিক সিরাজুদ্দৌলাহ, মো. নুরনবী ও মাহবুবা ইয়াছমিন ডলি। তাঁদের একজন ডলি বলেন, ২০০৯ সালে তাঁর প্রবাসী স্বামী গোলাম মাওলা নামের একজনের কাছ থেকে ৪৫ লাখ টাকা দিয়ে জমি কিনে বাড়ি তৈরি করেছেন। আর স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে, এই পাহাড় কেটে প্লট তৈরি করে দেওয়ার কাজটিই করেছেন নুরু। শুধু পাহাড় কাটা নয়, বাড়ি তৈরির প্রয়োজনে ইট, বালু, রড, সিমেন্ট সরবরাহের কাজটিও করতেন তিনি। এভাবেই নুরু কামিয়েছেন কোটি কোটি টাকা।

আকবর শাহ থানার ওসি জহির হোসেন বলেন, আকবর শাহ থানার পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনির পাহাড়ি এলাকাটি স্থানীয় লোকজনের কাছে ঝিল নামে পরিচিত। এই ঝিলগুলোতেই একসময় ছিন্নমূল মানুষের বসতি শুরু হয়েছিল পাহাড় কেটে। এখন সেখানে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ বাস করছে।

পরিবেশ অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম মহানগরের পরিচালক নূরুল্লাহ নূরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পূর্ব ফিরোজ শাহ এলাকার পাহাড়গুলোর বেশির ভাগই বেসরকারি। কিছু পাহাড় আছে রেলওয়ের। এসব পাহাড় নিয়ে আদালতে মামলা চলছে।’ তিনি বলেন, ‘নুরু ও তার সহযোগীদের নামে মামলা হয়েছে। এই মামলায় নুরু গ্রেপ্তার হয়েছে।’

ছিপছিপে গড়ন, বয়স ৩৭। পুরো নাম নুরুল আলম নুরু। কুমিল্লার ছেলে নুরুর বেড়ে ওঠা চট্টগ্রামে। শরীরের নোনা জল ফেলে, গতর খেটে তাঁর কর্মজীবনের শুরুটা ছিল শ্রমিক হিসেবে। তবে কাঁচা টাকার নেশায় শ্রমিকের কাজে মন বসেনি তাঁর। একসময় পাহাড় কাটায় মজেন নুরু। তিনিই চট্টগ্রামের পাহাড়খেকোদের ‘গুরু’। তাঁর শকুনি চোখ যে পাহাড়ে পড়েছে, পলকে সেখানেই রং হারিয়েছে সবুজ। সময়ের হাত ধরে তিনি হয়ে ওঠেন ‘পাহাড় ডন’। তাঁর আগ্রাসনে পাহাড়ও যেন নীরবে কাঁদে! একই সঙ্গে অপরাধের নানা অন্ধকার পথেও হাঁটেন তিনি। একের পর এক পাহাড় খেয়ে নুরু এখন টাকার পাহাড়ের চূড়ায়। পাহাড় কেটে সমান করে অন্যকে বিক্রি করা কিংবা টাকার বিনিময়ে অন্যের দখল করা পাহাড় কেটে দেওয়ায় ছিল তাঁর পেশা আর নেশা। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কড়া শাসনে এই নুরু এখন চৌদ্দ শিকে বন্দি। গত ৮ জানুয়ারি নোয়াখালী থেকে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। কনকর্ড নামে যে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন নুরু, সেই প্রতিষ্ঠানের অধিগ্রহণে নেওয়া পাহাড়ই বেশি কেটেছেন তিনি। তবে কনকর্ডের লিজ পাওয়া এই জমির মূল মালিক বাংলাদেশ রেলওয়ে। নুরুর বসতি চট্টগ্রাম মহানগরীর আকবর শাহ থানার নাছিয়া ঘোনা ১ নম্বর ঝিল এলাকায়। একসময়ের শ্রমিক নুরু শুধু পাহাড় কেটেই ক্ষান্ত হননি, নিজস্ব বাহিনী গড়ে তুলে নাছিয়া ঘোনায় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেন। ওই এলাকায় তাঁর অনুমতি ছাড়া কিংবা অপরিচিত কেউ ঢুকতে পারত না। ঘোনায় প্রবেশের আগে প্রধান ফটকে তাঁর নিজস্ব বাহিনীর সদস্যের জেরার মুখে পড়তে হতো সাধারণ মানুষকে। পরিচয় নিশ্চিত হলেই সীমানা পারাপারের অনুমতি, না হলে ফিরতে হতো ফটক থেকেই। তাঁর এলাকায় পুলিশও ছিল একরকম অসহায়! অনুসন্ধানে জানা যায়, এক যুগ ধরে নাছিয়া ঘোনা নুরুর কবজায়। অর্ধশতাধিক সন্ত্রাসী নিয়ে নিজস্ব বাহিনী গড়ে তুলে নুরু পাহাড় কাটাসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এলাকায় আধিপত্য জারি করে নুরু ধারাবাহিকভাবে পাহাড় কেটেছেন। প্লট তৈরি করে মানুষের কাছে বিক্রি করেছেন। নুরু পাহাড় কাটা বৈধ করতে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ডও ঢাল হিসেবে ব্যবহার করতেন। এসব কাজে ব্যবহার করা হতো অবৈধ অস্ত্র। শেষ পর্যন্ত অস্ত্র মামলায় তাঁর ১৭ বছরের কারাদণ্ডও হয়েছিল। কিন্তু সেই সাজার পরোয়ানাও দীর্ঘ দুই বছর গোপন রাখার বন্দোবস্ত করেছিলেন নুরু। নুরুর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ পেয়ে গত ২৬ ডিসেম্বর ওই এলাকায় অভিযানে গিয়েছিল পুলিশ। ওই সময় নুরুর নেতৃত্বে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছিল। তখনই পাহাড় কাটার বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে। এরপর ৩১ ডিসেম্বর আকবর শাহ থানায় মামলা করে পরিবেশ অধিদপ্তর। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, পাহাড়তলী মৌজার বিএস ৩৪২০ দাগের জায়গাটি পাহাড় শ্রেণিভুক্ত। এই পাহাড় কাটেন নুরুল আলম নুরু। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনি এলাকায় পাহাড় কেটে তৈরি হয়েছে বসতি, রেলওয়ে ও ব্যক্তিমালিকানাধীন পাহাড় কাটা হয়েছে অবাধে। ঝিলে পাহাড় কেটে তৈরি হয়েছে গাউসিয়া লেকসিটি নিউ আবাসিক এলাকা। ওই আবাসিকেই মূলত বহিরাগতদের প্রবেশ ছিল ‘অঘোষিত’ নিষিদ্ধ। শুধু সেখানকার বাসিন্দারাই যেতে পারত আবাসিকে। সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে সন্ত্রাসীদের আস্তানা। সেই আবাসিকে নিজস্ব বাড়ি, পাহাড় কেটে প্লট তৈরি, অন্যের ঘর তৈরির সরঞ্জাম সরবরাহসহ নানাভাবে টাকা আয় করে কোটিপতি বনেছেন নুরু। দেখা গেছে, পাহাড় কেটে যে নিউ আবাসিক এলাকা তৈরি করা হয়েছে, তার প্রবেশমুখে গেট তৈরি করা হয়েছে। গেটের আশপাশে তৈরি হয়েছে ভবন। ভবনগুলোর মালিক সিরাজুদ্দৌলাহ, মো. নুরনবী ও মাহবুবা ইয়াছমিন ডলি। তাঁদের একজন ডলি বলেন, ২০০৯ সালে তাঁর প্রবাসী স্বামী গোলাম মাওলা নামের একজনের কাছ থেকে ৪৫ লাখ টাকা দিয়ে জমি কিনে বাড়ি তৈরি করেছেন। আর স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে, এই পাহাড় কেটে প্লট তৈরি করে দেওয়ার কাজটিই করেছেন নুরু। শুধু পাহাড় কাটা নয়, বাড়ি তৈরির প্রয়োজনে ইট, বালু, রড, সিমেন্ট সরবরাহের কাজটিও করতেন তিনি। এভাবেই নুরু কামিয়েছেন কোটি কোটি টাকা। আকবর শাহ থানার ওসি জহির হোসেন বলেন, আকবর শাহ থানার পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনির পাহাড়ি এলাকাটি স্থানীয় লোকজনের কাছে ঝিল নামে পরিচিত। এই ঝিলগুলোতেই একসময় ছিন্নমূল মানুষের বসতি শুরু হয়েছিল পাহাড় কেটে। এখন সেখানে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ বাস করছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম মহানগরের পরিচালক নূরুল্লাহ নূরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পূর্ব ফিরোজ শাহ এলাকার পাহাড়গুলোর বেশির ভাগই বেসরকারি। কিছু পাহাড় আছে রেলওয়ের। এসব পাহাড় নিয়ে আদালতে মামলা চলছে।’ তিনি বলেন, ‘নুরু ও তার সহযোগীদের নামে মামলা হয়েছে। এই মামলায় নুরু গ্রেপ্তার হয়েছে।’

পাহাড় খেয়ে নুরু টাকার পাহাড়ে

ছিপছিপে গড়ন, বয়স ৩৭। পুরো নাম নুরুল আলম নুরু। কুমিল্লার ছেলে নুরুর বেড়ে ওঠা চট্টগ্রামে। শরীরের নোনা জল ফেলে, গতর খেটে তাঁর কর্মজীবনের শুরুটা ছিল শ্রমিক হিসেবে। তবে কাঁচা টাকার নেশায় শ্রমিকের কাজে মন বসেনি তাঁর। একসময় পাহাড় কাটায় মজেন নুরু। তিনিই চট্টগ্রামের পাহাড়খেকোদের ‘গুরু’। তাঁর শকুনি চোখ যে পাহাড়ে পড়েছে, পলকে সেখানেই রং হারিয়েছে সবুজ। সময়ের হাত ধরে তিনি হয়ে ওঠেন ‘পাহাড় ডন’। তাঁর আগ্রাসনে পাহাড়ও যেন নীরবে কাঁদে! একই সঙ্গে অপরাধের নানা অন্ধকার পথেও হাঁটেন তিনি। একের পর এক পাহাড় খেয়ে নুরু এখন টাকার পাহাড়ের চূড়ায়। পাহাড় কেটে সমান করে অন্যকে বিক্রি করা কিংবা টাকার বিনিময়ে অন্যের দখল করা পাহাড় কেটে দেওয়ায় ছিল তাঁর পেশা আর নেশা। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কড়া শাসনে এই নুরু এখন চৌদ্দ শিকে বন্দি। গত ৮ জানুয়ারি নোয়াখালী থেকে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। কনকর্ড নামে যে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন নুরু, সেই প্রতিষ্ঠানের অধিগ্রহণে নেওয়া পাহাড়ই বেশি কেটেছেন তিনি। তবে কনকর্ডের লিজ পাওয়া এই জমির মূল মালিক বাংলাদেশ রেলওয়ে। নুরুর বসতি চট্টগ্রাম মহানগরীর আকবর শাহ থানার নাছিয়া ঘোনা ১ নম্বর ঝিল এলাকায়। একসময়ের শ্রমিক নুরু শুধু পাহাড় কেটেই ক্ষান্ত হননি, নিজস্ব বাহিনী গড়ে তুলে নাছিয়া ঘোনায় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেন। ওই এলাকায় তাঁর অনুমতি ছাড়া কিংবা অপরিচিত কেউ ঢুকতে পারত না। ঘোনায় প্রবেশের আগে প্রধান ফটকে তাঁর নিজস্ব বাহিনীর সদস্যের জেরার মুখে পড়তে হতো সাধারণ মানুষকে। পরিচয় নিশ্চিত হলেই সীমানা পারাপারের অনুমতি, না হলে ফিরতে হতো ফটক থেকেই। তাঁর এলাকায় পুলিশও ছিল একরকম অসহায়! অনুসন্ধানে জানা যায়, এক যুগ ধরে নাছিয়া ঘোনা নুরুর কবজায়। অর্ধশতাধিক সন্ত্রাসী নিয়ে নিজস্ব বাহিনী গড়ে তুলে নুরু পাহাড় কাটাসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এলাকায় আধিপত্য জারি করে নুরু ধারাবাহিকভাবে পাহাড় কেটেছেন। প্লট তৈরি করে মানুষের কাছে বিক্রি করেছেন। নুরু পাহাড় কাটা বৈধ করতে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ডও ঢাল হিসেবে ব্যবহার করতেন। এসব কাজে ব্যবহার করা হতো অবৈধ অস্ত্র। শেষ পর্যন্ত অস্ত্র মামলায় তাঁর ১৭ বছরের কারাদণ্ডও হয়েছিল। কিন্তু সেই সাজার পরোয়ানাও দীর্ঘ দুই বছর গোপন রাখার বন্দোবস্ত করেছিলেন নুরু। নুরুর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ পেয়ে গত ২৬ ডিসেম্বর ওই এলাকায় অভিযানে গিয়েছিল পুলিশ। ওই সময় নুরুর নেতৃত্বে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছিল। তখনই পাহাড় কাটার বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে। এরপর ৩১ ডিসেম্বর আকবর শাহ থানায় মামলা করে পরিবেশ অধিদপ্তর। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, পাহাড়তলী মৌজার বিএস ৩৪২০ দাগের জায়গাটি পাহাড় শ্রেণিভুক্ত। এই পাহাড় কাটেন নুরুল আলম নুরু। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনি এলাকায় পাহাড় কেটে তৈরি হয়েছে বসতি, রেলওয়ে ও ব্যক্তিমালিকানাধীন পাহাড় কাটা হয়েছে অবাধে। ঝিলে পাহাড় কেটে তৈরি হয়েছে গাউসিয়া লেকসিটি নিউ আবাসিক এলাকা। ওই আবাসিকেই মূলত বহিরাগতদের প্রবেশ ছিল ‘অঘোষিত’ নিষিদ্ধ। শুধু সেখানকার বাসিন্দারাই যেতে পারত আবাসিকে। সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে সন্ত্রাসীদের আস্তানা। সেই আবাসিকে নিজস্ব বাড়ি, পাহাড় কেটে প্লট তৈরি, অন্যের ঘর তৈরির সরঞ্জাম সরবরাহসহ নানাভাবে টাকা আয় করে কোটিপতি বনেছেন নুরু। দেখা গেছে, পাহাড় কেটে যে নিউ আবাসিক এলাকা তৈরি করা হয়েছে, তার প্রবেশমুখে গেট তৈরি করা হয়েছে। গেটের আশপাশে তৈরি হয়েছে ভবন। ভবনগুলোর মালিক সিরাজুদ্দৌলাহ, মো. নুরনবী ও মাহবুবা ইয়াছমিন ডলি। তাঁদের একজন ডলি বলেন, ২০০৯ সালে তাঁর প্রবাসী স্বামী গোলাম মাওলা নামের একজনের কাছ থেকে ৪৫ লাখ টাকা দিয়ে জমি কিনে বাড়ি তৈরি করেছেন। আর স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে, এই পাহাড় কেটে প্লট তৈরি করে দেওয়ার কাজটিই করেছেন নুরু। শুধু পাহাড় কাটা নয়, বাড়ি তৈরির প্রয়োজনে ইট, বালু, রড, সিমেন্ট সরবরাহের কাজটিও করতেন তিনি। এভাবেই নুরু কামিয়েছেন কোটি কোটি টাকা। আকবর শাহ থানার ওসি জহির হোসেন বলেন, আকবর শাহ থানার পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনির পাহাড়ি এলাকাটি স্থানীয় লোকজনের কাছে ঝিল নামে পরিচিত। এই ঝিলগুলোতেই একসময় ছিন্নমূল মানুষের বসতি শুরু হয়েছিল পাহাড় কেটে। এখন সেখানে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ বাস করছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম মহানগরের পরিচালক নূরুল্লাহ নূরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পূর্ব ফিরোজ শাহ এলাকার পাহাড়গুলোর বেশির ভাগই বেসরকারি। কিছু পাহাড় আছে রেলওয়ের। এসব পাহাড় নিয়ে আদালতে মামলা চলছে।’ তিনি বলেন, ‘নুরু ও তার সহযোগীদের নামে মামলা হয়েছে। এই মামলায় নুরু গ্রেপ্তার হয়েছে।’

Comment / Reply From